প্রথমপাতা বিভাগের বাইরে জবির ৯০ শতাংশ শিক্ষীর্থী অনলাইন ক্লাসে অনীহা

জবির ৯০ শতাংশ শিক্ষীর্থী অনলাইন ক্লাসে অনীহা

3
0

জবি প্রতিনিধি:

করোনাভাইরাস সতর্কতা আর সামাজিক দূরত্বের জন্য বন্ধ দেশের সবধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। যথারীতি বন্ধ পাবলিক এবং প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল প্রকার ক্লাস পরীক্ষা। এরই মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয় বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে সেশনজট ঠেকাতে অনলাইনে ক্লাস নেওয়ার সিদ্ধান্ত জানান।

প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়গুলো অনলাইন ক্লাসের প্রক্রিয়া শুরু করলেও পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইন ক্লাসের যৌক্তিকতা নিয়ে কথা উঠেছে নানা রকম। এমতাবস্থায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) শিক্ষার্থীদের অনলাইন ক্লাসের বিষয়ে মতামত জানতে অনলাইনে পোল তৈরি করে জরিপের ব্যবস্থা করে জবি প্রেসক্লাব।

৯০ শতাংশ শিক্ষার্থীর অনলাইন ক্লাসে অনীহার তথ্য উঠে আসে এ জরিপে। রোববার (১৭ মে) রাত ৮টা ৩০ মিনিট থেকে সোমবার (১৮ মে) দুপুর ৩টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের অফিসিয়াল ফেসবুক গ্রুপ থেকে চালানো অনলাইন জরিপে অংশ নেন ১ হাজার ২২৬ জন শিক্ষার্থী। এর মধ্যে অনলাইনে ক্লাস করাতে অনীহা প্রকাশ করেন ১ হাজার ৯৭ জন শিক্ষার্থী। যা জরিপে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীদের ৮৯.৪৮ শতাংশ।

এছাড়াও অনলাইনে ক্লাসের পক্ষে মতামত দেন ১১৩ জন শিক্ষার্থী। যা জরিপে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীদের ৯.২২ শতাংশ। কোনো মতামত নেই এমন শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১৬ জন। যা জরিপে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীদের ১.৩ শতাংশ। শিক্ষার্থীরা বলছেন, অধিকাংশ শিক্ষার্থী পরিস্থিতির কারণে গ্রামে অবস্থান করছেন।

অনলাইন ক্লাসের জন্য পর্যাপ্ত ইন্টারনেট সার্ভিস, ইন্টারনেট সার্ভিস ক্রয় সামর্থ্য পাশাপাশি প্রয়োজনীয় ডিভাইসের ঘাটতিও উল্লেখযোগ্য। এমতাবস্থায় বিশ্ববিদ্যালয় অনলাইন ক্লাসের সিদ্ধান্ত নিলে সঙ্গত কারণেই শিক্ষার্থীদের সিংহভাগই অংশগ্রহন করতে পারবে না এই ক্লাসে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রকৌশলী ওহিদুজ্জামান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীর অনলাইন সুবিধা নাই, এজন্যই অনলাইন ক্লাস নেওয়া সম্ভব না। যদি ধরে নিই ৮০ শতাংশ শিক্ষার্থীর অনলাইনে ক্লাস করারা সুযোগ আছে, তাহলে বাকি ২০ শতাংশ শিক্ষার্থীতো বাদ যাচ্ছেই। আমরা সেই ২০ শতাংশ শিক্ষার্থীরও চিন্তা করব।

আপনার অভিমত/মন্তব্য জানাতে পারেন

অনুগ্রহ করে আপনার মন্তব্যটি লিখুন
অনুগ্রহ করে এখানে আপনার নাম লিখুন